২৪ জুন ,সোমবার, ২০১৯

শিরোনাম

> ফিটনেস

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

৪ অক্টোবর , বুধবার, ২০১৭ ১৩:২৪:৩৯

যোগাসন কেন করবেন?


যোগাসন কেন করবেন?

যোগাসন


শরীরের সঙ্গে মনের সংযোগ ঘটিয়ে আত্মিক উন্নতি ও শরীরের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে যোগাসনের বিকল্প নেই। যোগ শব্দের অর্থ দেহ ও মনের প্রগাড় সংযোগ বা ঐকান্তিক মিলন। ঋষি যাজ্ঞবল্ক্য জীবাত্মার সঙ্গে পরমাত্মার (নফস ও রুহুর মিলন) যোগ বা মিলনকে যোগ বলে আখ্যা দিয়েছেন।

সুস্বাস্থ্যের উদ্দেশ্যে বিধিসম্মতভাবে অঙ্গ সঞ্চালনই ব্যায়াম। নারী, পুরুষ, শিশু, বৃদ্ধ নির্বিশেষে প্রত্যেক মানুষেরই সুস্থ থাকার জন্য কিছু না কিছু যোগ ব্যায়াম করা দরকার । বলতে হয়, ‘সুষম খাদ্য খাও, যোগাসন কর, লাইফ স্টাইল পাল্টাও, টেনশন (স্ট্রেস্) মুক্ত জীবনযাপন কর।’ টেনশন বা স্ট্রেস্ থেকে মানুষের যে কত রোগ হতে পারে এবং আয়ু কমে যেতে পারে আধুনিক বিজ্ঞানীরা তা অনেকভাবে দেখিয়েছেন। ডায়াবেটিস, হৃদরোগ থেকে শুরু করে প্রায় সকল রোগের গোড়ায় রয়েছে মানসিক চাপ। যোগাচার্যদের মতে যোগাসনের মাধ্যমে সবচেয়ে কার্যকরি উপায়ে মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

যোগাসনকে অনেকে যোগ ব্যায়াম বলেন। আসন আর ব্যায়ামে কিছুটা পার্থক্য আছে। ব্যায়াম হচ্ছে খেলাধুলা, সাঁতারকাটা, হাঁটা, জগিং, সাইক্লিং, জিম, এ্যাক্রোবিক ইত্যাদি। খালি হাতে ব্যায়াম করা যায় আবার যন্ত্রযোগেও ব্যায়াম করা হয়। এর মাধ্যমে অঙ্গ সঞ্চালন হয় বটে। এতে যেমন দ্রুতি আছে তেমন শারীরিক পরিশ্রমও আছে। শারীরিক, মানসিক, আধ্যাত্মিক পূর্ণ প্রশান্তির জন্য যোগাসনের বিকল্প নেই। বলা হয়, জগিংয়ে দশভাগ উপকার হয়, টেনিস খেলায় হয় পনেরো ভাগ, সাঁতারে হয় পনেরো ভাগ। কেবল যোগাসনের মাধ্যমে এক শ’ ভাগ উপকারিতা পাওয়া যায়। যোগাসন ছাড়া এমন কোন ব্যায়াম নেই যাতে শরীরের অস্থি সন্ধিতে এবং ফুসফুস, প্লীহা, পাকস্থলী, মূত্রথলী, যকৃৎ, বৃক্ক ইত্যাদি অন্ত্রে ভালভাবে রক্ত সঞ্চালন হতে পারে। যোগাসন ছাড়া এমন কোন ব্যায়াম নেই যাতে মেরুদণ্ডে আড়াআড়ি আর লম্বালম্বী চাপ পড়তে পারে এবং মেরুদণ্ড দুইদিকে স্বাভাবিকভাবে বাড়তে পারে। যোগাসন শরীরের প্রয়োজনীয় গ্রন্থিগুলোকে অধিক সতেজ ও সক্রিয় করে তোলে। তাই যোগাসনকেই সর্বোত্তম বলে ধরা হয়।


আসনের উপকারিতা

১) দেহের নমনীয়তা বাড়ায়।

২) দেহ ও মনের সমতা রক্ষা করে।

৩) অবাঞ্চিত চিন্তা মনে আসতে দেয় না ।

৪) সূক্ষ্মতর ও উচ্চতর সাধনার জন্য মনকে প্রস্তুত ও সাহায্য করে।

৫) গ্রন্থিগত ত্রুটি দূর করে আর গ্রন্থিরস ক্ষরণে সমতা আনে।

এইভাবেই আসনের মাধ্যমে বৃত্তি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হয় ।

আসনের নামকরণ

ক) কিছু কিছু আসনের ভঙ্গিমা প্রাণীদেহের বিশেষ চলাফেরার মতো। তাই তাদের নামকরণ সংশ্লিষ্ট প্রাণীটির নামানুসারে রয়েছে যেমন - মৎস্যমুদ্রা, গরুড়াসন ইত্যাদি ।

খ) কিছু আসন প্রাণীর- সংরচনার বৈশিষ্ট্য বা স্বভাবের সমান। তাদের নামকরণ সে অনুযায়ী হয়েছে, যেমন- কুর্মাসন, শলভাসন (শলভা মানে পঙ্গপাল) ইত্যাদি।

গ) কিছু আসন বিশেষ গুণসম্পন্ন হওয়ায় তাদের নামকরণ সেভাবেই হয়েছে। যেমন-সর্বাঙ্গাসন। এতে সমগ্র দেহযন্ত্র উপকৃত হয়।

ঘ) কিছু আসন যিনি প্রথম আবিষ্কার করেছেন তার নামানুসারে হয়েছে। যেমন: মৎস্যেন্দ্রাসন (যোগী মৎস্যেন্দ্রনাথ কর্তৃক আবিষ্কৃত)। এই আসনটিও সমগ্র দেহযন্ত্রকে প্রভাবিত করে।


আসন প্রধানত দুই প্রকারের-স্বাস্থ্যাসন আর ধ্যানাসন। স্বাস্থ্যাসনের অভ্যাস করা হয় মূলত দৈহিক স্বাস্থ্যের জন্য আর কিছু করা হয় আধ্যাত্মিক উন্নতির জন্য। ধ্যানাসনের মুখ্য উদ্দেশ্য হলো মনের একাগ্রতা আর সাধনা। ধ্যানাসনের উদাহরণ হলো- পদ্মাসন, বদ্ধ পদ্মাসন, সিদ্ধাসন, বীরাসন।

এই দুই প্রকারের মধ্যেই আবার বহুসংখ্যক আসন আছে। যোগীরা সব মিলিয়ে ৫০,০০০ আসন ভঙ্গি আবিষ্কার করেছেন। কোন আসন করলে কী উপকার হয় বা কোন আসন কার করা উচিত একজন যোগাভ্যাসকারীর পক্ষে বুঝে ওঠা অসম্ভব। তাই আসনের ক্ষেত্রে একজন অভিঙ্গ আচার্যের মূল নির্দেশনা অপরিহার্য। আচার্যের বিনা নির্দেশনায় আসন অভ্যাস করলে উপকারের চেয়ে বিপদের ঝুঁকি থাকতে পারে। 


আফগানদের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
বিএনপির কার্যালয়ের পাশে পাঁচটি ককটেল বিস্ফোরণ
'মানুষের জীবন নিয়ে কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে'
কলকাতায় শুটিংয়ে ব্যস্ত বাংলাদেশের শিল্পীরা
নিবন্ধন ও ফিটনেসবিহীন গাড়ির মালিকদের তথ্য চায় হাইকোর্ট
'বিকেলের মধ্যে উদ্ধার কাজ শেষ হবে'
সুবর্ণচরে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে জলদস্যু নিহত
সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগও বন্ধ
বগুড়া-৬ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে
কুলাউড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন
'মেডিকেল টেস্ট থেকে চিকিৎসকদের কমিশন নেয়া বিচ্ছিন্ন ঘটনা'
ঝড়ে মন্দিরের প্যান্ডেল ভেঙে নিহত ১৪
চোখে অপারেশন না হলে আমি ধান কাটতে যেতাম: প্রধানমন্ত্রী
মুক্তিযোদ্ধাদের বয়স নির্ধারণে হাইকোর্টের রায়ই 
বাংলাদেশের যা কিছু অর্জন, সবই করেছে আ.লীগ: সাজেদা চৌধুরী
আ.লীগই দেশকে আর্থ-সামাজিকভাবে এগিয়ে নিচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী
রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব চাইল মালয়েশিয়া
টেকনাফে মানবপাচার মামলার ২ আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত
আ.লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা
ভারতকে মাটিতে নামাল আফগানরা 
আফগানদের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
বিএনপির কার্যালয়ের পাশে পাঁচটি ককটেল বিস্ফোরণ
'মানুষের জীবন নিয়ে কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে'
কলকাতায় শুটিংয়ে ব্যস্ত বাংলাদেশের শিল্পীরা
নিবন্ধন ও ফিটনেসবিহীন গাড়ির মালিকদের তথ্য চায় হাইকোর্ট
যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার 
উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় যুবকের পা ভেঙে দিল বখাটেরা
'বিকেলের মধ্যে উদ্ধার কাজ শেষ হবে'
সুবর্ণচরে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে জলদস্যু নিহত
টাইগারদের আফগান ম্যাচেও বাধা হতে পারে বৃষ্টি
কাতারের বিপক্ষে ২-০ গোলে জয় তুলে নিল আর্জেন্টিনা
সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগও বন্ধ
বগুড়া-৬ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে
কুলাউড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন
'মেডিকেল টেস্ট থেকে চিকিৎসকদের কমিশন নেয়া বিচ্ছিন্ন ঘটনা'
ঝড়ে মন্দিরের প্যান্ডেল ভেঙে নিহত ১৪
ফরিদপুরে এক বছর ধরে কাজের মেয়েকে ধর্ষণ
চোখে অপারেশন না হলে আমি ধান কাটতে যেতাম: প্রধানমন্ত্রী
নিক-প্রিয়াঙ্কার ডিভোর্স গুঞ্জন খবর প্রকাশে মামলা!
ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে বৃদ্ধা নিহত
যেভাবে উদ্ধার সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভ
ইতিহাস গড়ল টাইগাররা
চারদিন পর কমলো সোনার দাম
এইচআইভিতে আক্রান্ত ৪৬ জনকে শনাক্ত
রোগী দেখে ফেরার পথে লাশ হলেন চিকিৎসক
মার্কিন গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করল ইরান
ঘুমন্ত ছোট ভাইকে হত্যা করল বড় ভাই
ঢাবি ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ, গ্রেপ্তার ১
ফরিদপুরে এক বছর ধরে কাজের মেয়েকে ধর্ষণ
কাল ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে 
মান্দায় মাকে হত্যার পর মেয়েকে ধর্ষণ
বাংলাদেশকে ৩৮২ রানের টার্গেট দিল অস্ট্রেলিয়া
ফেসবুকে প্রেম, জার্মান নারী এখন খুলনায়
বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে যা বলছে!
শতরানের জুটি গড়ে ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ
মিশরের ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মুরসির মৃত্যু
ইরানকে এস-৪০০ নিতে বলল রাশিয়া
ঘুম থেকে জাগিয়ে ছাত্রকে বলাৎকার করল শিক্ষক
সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ফের সাকিব
নি‌খোঁজের ১৬ ঘণ্টা পর শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার

সব খবর