২৩ আগস্ট ,শুক্রবার, ২০১৯

শিরোনাম

> স্বাস্থ্য

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

২৬ জুলাই ,শুক্রবার, ২০১৯ ২১:০৭:৫৬

ডেঙ্গুজ্বর থেকে বাঁচতে যা করণীয়!


ডেঙ্গুজ্বর থেকে বাঁচতে যা করণীয়!

ছবি সংগৃহীত


দেশে ডেঙ্গুজ্বর এখন বলতে গেলে মহামারি আকার ধারণ করেছে। বিভিন্ন হিসেবে ১৯ জুলাই পর্যন্ত ২২ জনের মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আর প্রতিদিন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে প্রচুর মানুষ হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা নিচ্ছে। রাজধানী ঢাকা ছাড়িয়ে ডেঙ্গু এখন দেশের বিভিন্ন এলাকাতে ছড়িয়ে পড়ছে।

এমন পরিস্থিতিতে ডেঙ্গুজ্বর থেকে বাঁচতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ও ডিন ডা. এবিএম আব্দুল্লাহর কিছু পরামর্শ দিয়েছেন।

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, এটি মূলত হয় এডিস জাতীয় একটি মশার কামড়ে, মানে ভাইরাসবাহিত মশা, ওই মশার কামড়ে। আর একটা মশা আছে এডিস এলবোবটিকা, এডিস এবিবসাই বলে, এটা হলো মেইন (প্রধান)। আর একটা হলো এডিস এলবোবটিকাস। এর মধ্যে যদি এর ভাইরাসটা থাকে এবং এই মশাটা যদি কাউকে কামড় দেয়, এভাবেই কিন্তু ডেঙ্গুটা ছড়ায়।

ডেঙ্গু ভাইরাস কিন্তু চার রকমের থাকে। আমরা মেডিকেল টার্মে বলি ডেন-১, ডেন-২,ডেন-৩, ডেন-৪। চারটি ফাইরাস। এটা কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ বেশি। গুরুত্বপূর্ণ দুই কারণে, একটা হলো যে , এডিস যে মশা এটা কামড়ের দ্বারাই হয়। এটা বলার উদ্দেশ্য হলো, কোনো ভাইরাস যদি কামড় দেয় তার বডিতে (শরীরে) কিন্তু এ্যান্টিবডি তৈরি হয়,’ বলেন বিশেষজ্ঞ এই চিকিৎসক।

তিনি আরও বলেন, অনেকে প্রশ্ন করেন, ডেঙ্গু একবার হলে কি আবারো হয়? ডেঙ্গু কিন্তু চার বার হতে পারে। চারটা আলাদা ভাইরাস সেজন্য একবার কারো যদি হলো ডেন- ১ দিয়ে হলো, অন্য ভাইরাস কিন্তু থাকে ওর বিপরীতে যে এ্যন্টিবডি তৈরি হয়, সেটা কিন্তু অন্য ভাইরাস থেকে এসে নিরাপত্তা (প্রোটেকশন) দেয় না। আর একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, কেউ যদি প্রথমে একটা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয় ডেঙ্গুতে। এরপর দ্বিতীয় বার, তৃতীয় বার, চতুর্থবার হয় সেটা কিন্তু বিপদজনক হতে পারে, অনেক ক্ষেত্রে মৃত্যুও হতে পারে।

লক্ষণ

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘যেকোনো ভাইরাস জ্বরে শরীরের খুব অতিরিক্ত তাপমাত্র হয়। এই রোগের বেলায় ১০৩-৪-৫ হতে পারে। ৪/৫ দিন জ্বর থাকে, জ্বরের সাথে প্রচণ্ড মাথা ব্যাথা, শরীর ব্যাথা, কোমরে ব্যাথা, পিঠে ব্যাথা, হাড়ে ব্যাথা তীব্র আকার ধারণ করতে পারে। এগুলো দিয়ে ডেঙ্গু খুব সহজেই বোঝা যায়।’

‘৪/৫ দিন পর চলে যাওয়ার পর লাল লাল ফুসকুঁড়ি (ঘামাচির মত) ওঠে। এসময় রক্তের প্লেটিলেট কমে যায়।রোগীর রক্তক্ষরণের ঝুঁকি থাকে। নাকে রক্ত, মুখে রক্ত, বমির সাথে রক্ত, পায়খানার সাথে রক্ত। আবার অনেকর ব্রাশ করলে দাঁতের গোড়া দিয়ে রক্ত পড়ে।’

‘মেয়েদের ক্ষেত্রে সমস্যাটা বেশি হয়। দেখা যায়, ঋতুস্রাব শুরু হয়েছে, রক্তপাত আর থামছে না। আগে দু-একদিনে ভালো হতো, এখন ভালো হচ্ছে না। অথবা সম্প্রতি ঋতুস্রাব শেষ হয়ে গেলো অসময়ে আবার শুরু হয়ে গেলো। এটাও ডেঙ্গু রোগের লক্ষণ।’

‘যদি রক্তক্ষরণ বেশি হয়ে যায়। এর ফলে রক্তচাপ কমে যায়, প্রস্রাব কমে যায়। তখন একটা জটিল রোগ হতে পারে যাকে বলে ডেঙ্গু শকসিন্ড্রম। এতে রোগী অজ্ঞান হয়ে যায়, সিরিয়াস হয়ে মারাও যেতে পারে।’

সতর্কতা

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘অনেক সময় ডাক্তার বা রোগীর ভুল হতে পারে। ৪/৫ দিন পর জ্বর চলে গেলে রোগী মনে করতে পারে, আমি তো ভালোই হয়ে গেলাম। সুতরাং ডাক্তারের কাছে যাওয়ার দরকার কী। অথবা ডাক্তার মনে করতে পারে, ৪/৫ দিনের ভাইরাস জ্বর কী আর হবে? ভালো হয়ে যাবে। এইটা কিন্তু অনেক বড় ভয়ানক ভুল।’

বিশিষ্ট এই চিকিৎসক বলেছেন, ৪/৫ দিনের জ্বর কমে গেলে রক্তের প্লেটিলেট কমে রোগির রক্তক্ষরণের ঝুঁকি থাকে; ডেঙ্গুর শকসিন্ড্রম যাকে বলে, এটা হতে পারে। সেজন্য আমরা বলি ৫/৭ দিন বা জ্বরের ৪/৫ দিন পরে এই টার্মকে বলা হয় জটিল সময় (ক্রিটিক্যাল পিরিয়ড)। এটাকে কোনো সময় অবহেলা করা যাবে না। এই সময় যত অঘটন ঘটে। রোগী যদি সঠিকভাবে চিকিৎসা না নেয় তাহলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

তিনি বলেন, দু-একদিনের জ্বরে রক্ত পরীক্ষা করে কোনো লাভ নাই। রক্ত পরীক্ষা করা উচিত ৪/৫ দিন পরে। কারণ জ্বরের দু‘একদিন পর সিবিসি‘তে রক্ত পরীক্ষা করেই ফেলেন তাহলে রির্পোট নরমাল থাকবে। ডেঙ্গু ধরা পড়বে না। এ বিষয়ে ডাক্তার ও রোগীকে সাবধান থাকতে হবে।

এ্যান্টিবায়োটিক খাবেন কি না?

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘ডেঙ্গু হলে এ্যান্ডিবায়োটিক দেয়া যাবে না এ ধারণা ভুল। রোগীর যদি অন্য কোনো সমস্যা থাকে। সেটার জন্য যদি লাগে, ডাক্তার এ্যান্টিবায়োটিক দিতে পারে। এতে ডেঙ্গুর কোনো ক্ষতি হবে না।’

চিকিৎসা

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘ডেঙ্গুর কোনো নির্দিষ্ট চিকিৎসা নেই। আক্রান্ত হলে বিশ্রামে থাকবে, জ্বরের জন্য প্যারাসিট্যামল খাবে, ভেজা কাপড় দিয়ে শরীর মুছতে পারে। প্রচুর পানি খাবেন- শরবত, গ্লুকোজ, ডাবের পানি খাওয়া যাবে।’

‘অনেকের ভুল ধারণা থাকে ডেঙ্গু হলেই রক্ত দিতে হয়। যদি খুব বেশি রক্তক্ষরণ হয় সেক্ষেত্রে রক্ত দিতে হবে, অন্যথায় নয়। আবার প্লাটিলেট কমে গেলও তা দেয়ার দরকার নাই। কারণ ৫/৬ দিন পর আবারো প্লাটিলেট বেড়ে যাবে। হ্যাঁ, যদি বেশি কমে যায় ডাক্তার যদি মনে করে তাহলে দিতে পারে,’ যোগ করে ডা, আব্দুল্লাহ।


(নিউজ টোয়োন্টিফোর/কামরুল)


'২৫ ফেব্রুয়ারি ২৪ ঘণ্টা কোথায় ছিলেন খালেদা জিয়া' 
অসদাচরণের হাইকোর্টের তিন বিচারপতিকে অব্যাহতি
'রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে থাকার প্ররোচনা দিলে ব্যবস্থা'
ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনে সাব-রেজিস্ট্রার অফিসকে আনার সুপারিশ
রিফাত হত্যা মামলার চার্জশিট ৩ সেপ্টেম্বর
শেষ পর্যন্ত এবারও শুরু করা গেল না রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন
ড্রিমলাইনার গাঙচিলের বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু
বিজিবি সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা নিহত
'যে অভিশাপ খালেদা জিয়া আমায় দিয়েছিল এখন তা তার কপালেই'
'খালেদা জিয়া ২১ আগস্ট হামলার দায় এড়াতে পারেন না'
'এ বছরেই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার শুনানি হবে'
কাশ্মীরে গোলাগুলিতে সেনা সদস্যসহ নিহত ২
২১ আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা
'তারেকের সর্বোচ্চ শাস্তির জন্য উচ্চ আদালতে যাওয়া হবে'
ক্রসফায়ার ও ভয়ঙ্কর নির্যাতন নিয়ে মুখ খুললেন জজ মিয়া
২১শে অগাস্ট হামলায় যেভাবে রক্ষা পেয়েছিলেন শেখ হাসিনা
 বিশ্ব আদালতে ভারতের বিরুদ্ধে মামলা করছে পাকিস্তান
মিন্নিকে কেন জামিন দেয়া হবে না- তা জানতে রুল জারি
টাইগাদের দায়িত্ব নিতে ঢাকায় রাসেল ডমিঙ্গো
কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের সম্মান ম্লান হয়েছে: অমর্ত্য সেন
'২৫ ফেব্রুয়ারি ২৪ ঘণ্টা কোথায় ছিলেন খালেদা জিয়া' 
এখনই চালু হচ্ছে না ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে
সাবেক কর্মকর্তা পপির বিরুদ্ধে সিটি ব্যাংকের মামলা
যে নারীর কারণেই ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী কারাগারে
ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মাদ্রাসা ছাত্রের মৃত্যু
অসদাচরণের হাইকোর্টের তিন বিচারপতিকে অব্যাহতি
'রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে থাকার প্ররোচনা দিলে ব্যবস্থা'
ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনে সাব-রেজিস্ট্রার অফিসকে আনার সুপারিশ
কেপিএম শ্রমিক কর্মচারী পরিষদের রাঙামাটিতে সংবাদ সম্মেলন
বিএনপির দু’গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া
নাটোরে এখনও চামড়া কেনা শুরু হয়নি
ফরিদপুরে  পৃথক বজ্রপাতে নিহত ৩ 
রিফাত হত্যা মামলার চার্জশিট ৩ সেপ্টেম্বর
নৈশ কোচ-মিনি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩
এখনও জমা হয়নি রাজীবের মামলার প্রতিবেদন
শেষ পর্যন্ত এবারও শুরু করা গেল না রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন
ড্রিমলাইনার গাঙচিলের বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু
ময়মনসিংহে ডিবি সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত
মসজিদে ইমামের গলাকাটা লাশ
আজ হতে পারে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন
১০ ঘটনায় ভারতের ১১ বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ২২
‘‌সালমানের সঙ্গে আমার বিয়ে হচ্ছে’
এবার বলিউডে পা রাখলেন মম
কেন বাংলাদেশি যুবক পছন্দ ওই তরুণীদের
বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করল মেয়ে
পাকিস্তানকে পারমাণবিক হামলার হুমকি
প্রকৌশলীকে শাস্তির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রীকে বিয়ের দাওয়াত দিলেন সাব্বির 
ছাত্রীকে ধর্ষণ করতে গিয়ে স্ত্রীর হাতে ধরা শিক্ষক
'আমার জীবনের ১৬টি বছর খুব সুন্দর ছিল' লিখে আত্মহত্যা
মিন্নির গ্রেপ্তার-জবানবন্দি বিষয়ে জানতে চান হাইকোর্ট
ক্রসফায়ার ও ভয়ঙ্কর নির্যাতন নিয়ে মুখ খুললেন জজ মিয়া
ভারতীয় সাবেক ওপেনারের আত্মহত্যা
ফের মিলল ‘আল্লাহু’ লেখা মাংস, তোলপাড়
কুমিল্লায় বাস চাপায় আটোরিকশার ৫ যাত্রী নিহত
এবার ভারতীয় সেনা নিহত
‘এ যুগের শয়তান মওদুদ’
যে নারীর কারণেই ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী কারাগারে
নয়ন বন্ডের বাড়িতে চুরি, পাওয়া যাচ্ছে না গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র
কাশ্মীর সংকট নিয়ে মুখ খুলে তোপের মুখে সোনম কাপুর

সব খবর